হার্ডডিস্কের স্বাস্থ্য

তথ্য প্রযুক্তির এই যুগে ব্যক্তি জীবন থেকে শুরু করে সর্বক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ হয়ে উঠেছে কম্পিউটার। আর কম্পিউটারে তথ্য ধরে রাখার জন্য গুরুত্বপূর্ণ একটি যন্ত্রাংশ হার্ডড্রাইভ। যেকোনো ইলেকট্রনিকস যন্ত্রের মতোই এই ডিভাইসটির আয়ুষ্কাল আছে। তবে আয়ুর বিষয়টি তাপমাত্রার ওঠানামা, আর্দ্রতা ও নানা বাহ্যিক অবস্থার ওপরও নির্ভর করে। নির্দিষ্ট সময় ব্যবহারের পরে হার্ডড্রাইভ নষ্ট হয়ে যায়। তাই আগে থেকে সচেতন থাকতে হবে ডিভাইসটি নষ্ট হয়ে যেন গুরুত্বপূর্ণ ফাইল হারিয়ে না যায়। হার্ডড্রাইভ নষ্টের বেশ কিছু লক্ষণ আছে।
হার্ডড্রাইভ থেকে যদি একই শব্দ বারবার শোনা যায় বা কোনো কিছু গুঁড়া করার মতো শব্দ আসতে থাকে, তবে বুঝতে হবে হার্ডড্রাইভের আয়ু প্রায় শেষের পথে। বারবার শব্দ আসার বিষয়টিকে ‘ক্লিক অব ডেথ’ বলা হয়। কোনো কিছু রাইট করতে বা এরর ঠিক করার প্রক্রিয়ার সময় এ শব্দ তৈরি হয়। কোনো সফটওয়্যার বা ফোল্ডার খোলার সময় তুলনামূলকভাবে গতি কম হলে কিংবা কম্পিউটার হ্যাং করলে, এ ছাড়া ‘ব্লু স্ক্রিন অব ডেথ’ দেখালে বুঝতে হবে হার্ডড্রাইভের আয়ু শেষের পথে।
এ ধরনের সমস্যা হয়তো সব সময় দেখবেন না; কিন্তু উইন্ডোজ সেফ মোড বা নতুন করে ইনস্টলেশন দেওয়ার সময় যদি এ ধরনের সমস্যা দেখেন, তবে বুঝবেন আপনার পিসির হার্ডড্রাইভটা ঠিকমতো কাজ করছে না।
যদি খুব বেশি হার্ডড্রাইভে ব্যাড সেক্টর দেখতে পান, তবে বুঝবেন হার্ডড্রাইভের অবস্থা শোচনীয়। ব্যাড সেক্টর হচ্ছে হার্ডড্রাইভের ত্রুটিপূর্ণ এলাকা, যে এলাকাগুলো ডাটা রিড বা রাইট করার অনুরোধ পেলেও সাড়া দেয় না।
অনেক সময় কোনো ফাইল না খোলা এবং কোনো কারণ ছাড়াই ফাইল গায়েব হয়ে যাওয়া বা ফাইল করাপ্ট হয়ে যাওয়া হার্ডড্রাইভ নষ্টের পূর্ব একটি লক্ষণ।
By Abrar Ahnaf karim

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *